আমি কষ্ট পাচ্ছি কেন?


আসলে আমি আমার দুঃখের কারণগুলো অন্যকিছুর মধ্যে খুঁজি। আমার কখনো সময় হয়নি আমি সঠিক কিনা তা ভেবে দেখতে। সময় হয়নি কারণ আমার মধ্যে আছে প্রচণ্ড হিংসা আর অহংকার। আমি পুরো জীবনটাই তো হিংসা নিয়ে কাটিয়েছি, লজ্জার বিষয় এই যে, আমি সবাইকে উপদেশ দিই “হিংসা আর অহংকার হল পতনের মূল।”


আজ পাঠশালায় শিখবো আমি কষ্ট পাচ্ছি কেন? আমি তো কাওকে কষ্ট দিচ্ছি না, বা কাওকে কষ্ট দিইনি কখনো।

কখনো ভেবে দেখিনি, আমার পুরো সময়টাই কাটছে আসলে হিংসা করেই, আর আমি কারো ভালো কিছু মন থেকে পছন্দ করতে অভ্যস্ত নই, আরও স্পষ্টভাবে বলতে গেলে আসলে আমি কারো ভালো কিছু হোক এটা মেনে নিতে পারি না। এটার কারণ হল আমি পারি না তাদের মতো সুন্দর হতে তাই আমি তাদের পছন্দও করি না। কিন্তু, আমিই তো সেই মহামূর্খ যে কখনো ভেবে দেখেনি, যে ওই হিংসা আমাকে তো তাদের মতো সুন্দর করেনি এবং করেনি নিষ্পাপ। এটা বুঝেও আমি হিংসা ত্যাগ করতে পারছি না কারণ এটা ত্যাগ করা মানে আমার পরাজয়।


কিন্তু, বুঝতে ইচ্ছে হচ্ছে না, এখানে পরাজয় কি হতে পারে আমার? তবে আমি জানি এখানে হিংসার পরাজয় হবে তখন আর আমার হবে জয় এবং আমি হবো পবিত্র। এটা বোঝার পরও আমি ভাবছি হিংসা ত্যাগ করবো না আমি।


আমার সমস্ত কষ্টের কারণ হল আমার হিংসা আর এই হিংসাই আমার অহংকারের জন্মদাতা। আমার মধ্যে পবিত্র গুণগুলোর একটাও নেই এই হিংসার কারণে, তাই আমার প্রয়োজন এই অহংকারটা, নিজেকে সর্বশ্রেষ্ঠ প্রমাণ করার জন্য। কিন্তু, আমিতো সেই নিকৃষ্ট যে অহংকারের মুখোশে প্রমাণ করবে শ্রেষ্ঠত্ব।

তাহলে তো আমি কষ্টেই থাকবো, কারণ আমি হিংসামুক্ত হতে চাইছি না ইচ্ছে করেই আর একারণে আমি পবিত্রও হতে পারছি না। আমিতো এটাও ভুলে গেছি যে আমার দোষগুলোতে নিষ্পাপকে দোষী করা জঘন্য অপরাধ। এই গুণটাও আমার মধ্যে বিদ্যমান, আরও ভেবে দেখেছি এগুলোর স্রষ্টাও আমার হিংসা।


Leave a Reply